Author bio

রবিন জামান খান

রবিন জামান খান - book author

রবিন জামান খানের জন্ম ময়মনসিংহ শহরে হলেও বাবার চাকুরির সুবাদে বড় হয়েছেন বিভিন্ন জেলায়। সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজি সাহিত্যে অনার্স ও মাস্টার্স সম্পন্ন করেছেন তিনি। মূলত থ্রিলার সাহিত্যের প্রতি নিদারুণ আগ্রহ থেকেই লেখালেখিতে আসা। অনুবাদের পাশাপাশি নিয়মিত লিখছেন থ্রিলার,
ছোট গল্প এবং ভবিষ্যতে মৌলিক থ্রিলার লেখার ইচ্ছে আছে। বর্তমানে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজি ভাষাতত্ব বিষয়ে অধ্যায়নরত।

রবিন জামান খান is the author of books: ২৫শে মার্চ, সপ্তরিপু, ফোরটি এইট আওয়ার্স, ব্ল্যাক বুদ্ধা, দিন শেষে, আরোহী - অন্ধ প্রহর, শব্দজাল, থৃলার গল্প সংকলন, থৃলার গল্প সংকলন ২, থৃলার গল্প সংকলন ৩


Author books

#
Title
Description
01
মায়ের মৃত্যু সংবাদ শুনে দেশে ফিরে অদ্ভুত এক রহস্যময় ঘটনায় জড়িয়ে পড়ে অরনী। মৃত্যুর আগে তার মা রেখে গেছে অদ্ভুত এক ধাঁধা আর ধোঁয়াশা মেশানো অতীত। মায়ের মৃত্যু রহস্য উন্মোচিত করতে হলে তাকে সমাধান করতে হবে এই ধাঁধার এবং ডুব দিতে হবে অতীতে। পরিস্থিতির চাপে বাধ্য হয়ে তাকে সাহায্য নিতে হয় খুনের সন্দেহে গ্রেপ্তার হওয়া মানুষটির কাছ থেকেই। ঘটনার পরিক্রমায় নিজেও সে নাম লেখায় পলাতক আসামির খাতায়। অদ্ভুত এই রহস্য সমাধান করতে গিয়ে একদিকে পুলিশের তাড়া, অন্যদিকে অদৃশ্যভাবে তাদেরকে সাহায্য করতে থাকে অচেনা একদল লোক। ঘটনার ঘাত প্রতিঘাতে সে জানতে পারে সমস্ত রহস্যের বীজ রোপিত আছে ইতিহাসের বিশেষ একটি দিনে, ২৫শে মার্চ, ১৯৭১।
02
গল্পটা কোন আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্রের নয়, কিংবা ইতিহাসের বুকে লুকিয়ে থাকা ভয়ঙ্কর কোন সত্যেরও নয়-যা প্রকাশ পেলে পাল্টে যাবে ইতিহাসের গতিপথ। বরং গল্পটা একজন ডিমোশন পাওয়া পুলিশ অফিসারের। একদিকে পারিবারিক বিপর্যয় অন্যদিকে ডিমোশন পেয়ে ক্যারিয়ারের যখন বারোটা বেজে গেছে এমন সময় অদ্ভুত এক কেসের দায়িত্ব এসে পড়ে ইন্সপেক্টর আহমেদ বাশারের ওপরে। ময়মনসিংহ শহরের পরিত্যক্ত এক পুকুরের নিচ থেকে উদ্ধার হয় একটি পুরনো গাড়ি, সেটার ভেতরে একজন মানুষের লাশ। এই ঘটনার প্রকৃত স্বরূপ উদ্ধার করতে গিয়ে বাশার যখন দিশেহারা তখন তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে সাংবাদিক জয়া সরকার। অন্যদিকে তাদের সাথে ঘটনাচক্রে জড়িয়ে পড়ে আর্কিওলজিস্ট রিফাত মজুমদার। ঘটনার পরিক্রমায় তারা জানতে পারে বর্তমান সময়ের এই অদ্ভুত রহস্য সমাধান করতে হলে তাদেরকে ডুব দিতে হবে অতীতের এক অন্ধকার সময়ে, যখন ভারতবর্ষের বুকে বিচরণ করে বেড়াত হিংস্রতম খুনে ডাকাতের দল, ইতিহাসে যারা ‘ঠগী’ নামে পরিচিত। বৃটিশ অফিসার ক্যাপ্টেন জেমস ম্যাকফি আর ইন্সপেক্টর আহমেদ বাশারের সাথে আপনাদেরকেও ঠগী’র অন্ধকার ভুবনে নিমন্ত্রণ।
03
পুলিশের সিনিয়র এএসপি মারুফের সাথে তুচ্ছ ঝগড়া হবার পর পরই খুন হয়ে যায় মিডিয়া ব্যক্তিত্ব জাকির আদনান। ডিপার্টমেন্ট থেকে মিডিয়া, এমনকি খোদ হোম মিনিস্টারও উঠে পড়ে লাগে ওকে খুনি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার জন্যে। এমন পরিস্থিতিতে বড়কর্তা তাকে সাসপেন্ড না করে আটচল্লিশ ঘন্টা সময় বেঁধে দেন সত্যিকারের খুনিকে খুঁজে বের করার জন্যে। ডিপার্টমেন্টের এক জুনিয়র আর এক আইটি এক্সপার্টের সহায়তায় খুনিকে খুঁজে বের করার জন্যে মাঠে নামে সে। ওদের হাতে সময় আছে মাত্র আটচল্লিশ ঘন্টা।

অসম্ভব এই কাজটি করতে গিয়ে নতুন এক সত্যের মুখোমুখি হতে হলো তাদেরকে। কি সেই সত্য জানতে হলে অপেক্ষা করতে হবে মাত্র আটচল্লিশ ঘণ্টা।
04
সময়: ১৮০ খ্রিস্টপূবার্ব্দ। মৌর্য সাম্রাজ্যের পতন আর শুঙ্গ বংশের উত্থানের মধ্যে দিয়ে ভারতবর্ষ যখন ইতিহাসের নিষ্ঠুরতম গণহত্যায় উত্তাল, এমনি এক বিক্ষুব্ধ সময়ে অপহৃত হলো তিব্বতের সবচেয়ে বড় মঠের প্রধান লামা। তাকে উদ্ধার করতে ভারতবর্ষের মাটিতে পা রাখলো তিব্বতের সেরা যোদ্ধাদের একজন।

অন্যদিকে, বর্তমান সময়ে আসাম থেকে রিসার্চ প্রজেক্ট শেষ করে দেশে ফেরার পথে গায়েব হয়ে গেল শাবিপ্রবি’র এক শিক্ষক। তাকে খুঁজে বের করতে সিলেট পাঠানো হলো অফিসার তানভীর মালিককে। একদিকে সিলেট শহরকে ঘিরে পুরনো ব্যক্তিগত তিক্ততা, অন্যদিকে ফিল্ড লেভেলে কাজের অনভিজ্ঞতায় দিশেহারা তানভীর মালিক প্রতি পদে হোঁচট খেতে-খেতে যখন প্রায় রহস্য উন্মোচনের দ্বারপ্রান্তে তখুনি সে আর তার অপারেটিভ টিম জানতে পারলো অতীত আর বর্তমানের এই জটপাঁকানো ঘটনার মূল নিহিত আছে এমন এক বিন্দুতে যেখানে অবস্থান করছে দুই হাজার বছরের পুরনো এক রহস্য- মানব সভ্যতা যাকে বুদ্ধের অন্ধকার অবতার নামে জেনে এসেছে।

রবিন জামান খানের নতুন হিস্ট্রিক্যাল থ্রিলার ব্ল্যাক বুদ্ধা- ধর্ম, গোত্র, লোভ, বিশ্বাসঘাতকতা আর ক্ষমতার লড়াইয়ের এক বিস্তৃত উপাখ্যান, যেখানে অতীতের পাপাচার সংজ্ঞায়িত করে চলেছে বর্তমান সংশয়কে।
05
হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে এক রোগির মৃত্যুর পরই সক্রিয় হয়ে উঠলো একাধিক গোষ্ঠি । ভয়ঙ্কর মানুষগুলোর উদ্দেশ্য একদমই অজানা । বাধ্য হয়ে প্রাণ বাঁচাতে অজ্ঞাত একজনের সাহায্য নিতে হয় ডাক্তার তুলিকে । অজ্ঞাত সেই লোকের উদ্দেশ্যও অস্পষ্ট । কাকে বিশ্বাস করবে আর কার কাছ থেকে দূরে থাকতে হবে সে জানে না । দিন শেষে ক্ষমতা, লোভ, বিশ্বাসঘাতকতা আর প্রতিহিংসার পর কার উদ্দেশ্য চরিতার্থ হয়?

‘দিন শেষে’ পাঠক খুঁজে পাবেন এর জবাব।
06
আরোহী:

অত্যন্ত সাধারণ জীপনযাপনে অভ্যস্ত ইফতির জীবন হঠাৎই বদলে যায় এক আকষ্মিক ঘটনায়। সাইকেল চালিয়ে বাসা থেকে অফিসে যাবার পথে সে সাক্ষি হয়ে যায় এক ভয়ঙ্কর অপরাধের। নিজের করণীয় ঠিক করার আগেই ঘটনার ঘনঘটায় জড়িয়ে পড়ে সে। একদিকে নষ্ট রাজনীতির ক্ষমতায় মদদপুষ্ট ক্ষমতাবান প্রতিপক্ষ, অন্যদিকে নিজের ও পরিবারের নিরাপত্তাহীনতার মনস্তাত্তিক দ্বন্দ্ব। এমন অবস্থায় সবকিছু নির্ভর করছে একজন সাধারণ সাইকেল আরোহীর ব্রেক, পেডাল আর গতির ওপরে। আরোহীর আসনে আপনাকে স্বাগতম।

অন্ধ প্রহর:
দেশের অন্যতম প্রভাবশালী পরিবারের একমাত্র ছেলেকে ব্ল্যাকমেইল করতে গিয়ে নিজেদেরই বিপদ ডেকে আনে দুই যুবক। ঘটনার ক্রমণিকায় তাদের সাথে জড়িয়ে পড়ে আরো অনেকেই। একটি মিথ্যে যেভাবে একাধিক মিথ্যের জন্ম দেয়, ঠিক একইভাবে একটি অপরাধের প্রতিক্রিয়ায় সৃষ্টি হয় আরো অপরাধের। কিছু মানুষের ভুল-ভ্রান্তি, লোভ-লালসা আর অপরাধের বিস্তৃত ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়ায় সৃষ্টি হয় এক জটিল লোকিক সমীকরণের। যে-সমীকরণের সমাধান নিহিত আছে এক অন্ধ প্রহরে।
07
বছর শুরুর প্রারম্ভে একাধিক উপলক্ষ্যকে সামনে রেখে যখন উৎসবের আমেজে সেজেছে পুরো শহর এমন সময় আন্তর্জাতিকভাবে কুখ্যাত এক অপরাধী নিতান্ত আকস্মিকভাবে ধরা পড়লো এয়ারপোর্টে। ধরা পড়েই সে জানালো তাকে ছেড়ে দেওয়া না হলে বছরের প্রথমদিন ঘটবে এমন এক ঘটনা, যার ফলে প্রাণ হারাবে লক্ষাধিক মানুষ। একদিকে ইন্টারপোলসহ বিশ্বের বড়-বড় আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর চাপ, অন্যদিকে কুখ্যাত এই অপরাধীর বিশেষ প্রস্তাবের কূটচালে প্রশাসন যখন দিশেহারা এমন সময় জটপাকানো এই ঘটনার দায়িত্ব এসে পড়ে দীর্ঘদিন যাবৎ স্বেচ্ছা-অবসরে থাকা সাইকোলজির এক প্রফেসরের ওপরে। জটিল ও প্রাণঘাতী এই ষড়যন্ত্রের স্বরূপ উদঘাটনের জন্যে প্রফেসরের একমাত্র অস্ত্র তার বুদ্ধিমত্তা, হাতে সময় মাত্র এক রাত। প্রফেসর কি পারবে কুখ্যাত এই অপরাধীকে নিজের বুদ্ধিমত্তার জালে বন্দি করে লক্ষাধিক মানুষের প্রাণ বাঁচাতে...?
জবাব জানতে পড়ুন ২৫শে মার্চ, সপ্তরিপু, ব্ল্যাকবুদ্ধা’র মতো উপন্যাস দিয়ে বাংলাদেশ ও কলকাতায় পাঠকপ্রিয়তা অর্জন করা লেখক রবিন জামান খানের সাইকোলজিক্যাল থ্রিলার সিরিজের প্রথম উপন্যাস ‘শব্দজাল’- যেখানে ধীশক্তি আর শব্দের খেলায় ফুঁটে উঠেছে মানবমনের বিচিত্র এক অন্ধকার উপাখ্যান।
08
বর্তমান বিশ্বের বইয়ের বাজারে থৃলার সাহিত্যের জয়জয়কার। শতকরা প্রায় আশি ভাগ বই থৃলার নির্ভর কাহিনীকে ঘিরে রচিত হয়। থৃলারের এই ব্যাপক জনপ্রিয়তার কারণে কয়েক বছর আগে থৃলার লেখকেরা একত্রিত হয়ে গড়ে তোলেন "ইন্টারন্যাশনাল থৃলার রাইটার্স" নামে একটি সংগঠন, সংক্ষেপে যাকে আইটিডব্লিউ নামে অবিহিত করা হয়। বর্তমানে এর সদস্য সংখ্যা প্রায় লাখখানেক। আইটিডব্লিউ'র হিসেবমতে তাদের সদস্যদের বই প্রতি বছর বিশ্বব্যাপী বিক্রি হয় ষোলো কোটিরও উপরে।

আমাদের দেশে থৃলার সাহিত্যের ব্যাপক পাঠকপ্রিয়তা থাকা সত্ত্বেও এই ক্ষেত্রটি একেবারেই অবহেলিত, তারপরেও বিশ্বমানের থৃলারগুলোর পাশাপাশি বাংলাদেশের পটভূমিতে লেখা মৌলিক থৃলারের চাহিদা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। এক্ষেত্রে বাতিঘর প্রকাশনী নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে, তারই ধারাবাহিকতায় অনুবাদ এবং মৌলিক গল্প নিয়ে একটি থৃলার গল্প সংকলন প্রকাশ করা হলো। পাঠকের ভালো লাগলে আমাদের প্রয়াস সার্থক হবে।
--রবিন জামান খান, লেখক ও অনুবাদক (ইনসাইড ফ্ল্যাপ থেকে)

গল্পের সূচী:
১. মেমেন্তা মোরি, মূল: জোনাথান নোলান, অনু: মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন
২. লটারি, মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন
৩. ফলিং, মূল: ক্রিস মুনি, অনু: তানজীম রহমান
৪. স্বদেহভোগী, তানজীম রহমান
৫. আবার আসে ফিরে, শরীফুল হাসান
৬. শোধ, শরীফুল হাসান
৭. দ্য ফেস ইন দ্য উইন্ডো, মূল: হিদার গ্রাহাম, অনু: রবিন জামান খান
৮. দ্য আবেলার্ড স্যাংশন, মূল: ডেভিড মোরেল, অনু: রবিন জামান খান
৯. সুইসাইড, রবিন জামান খান
১০. হিরু, জাহিদ হোসেন
১১. পুনর্জাগরণ, জাহিদ হোসেন
১২. মমতাময়ী, মাশুদুল হক
১৩. নির্বাণ, নওশের ইবনে হালিম ডন
09
যেকোন দেশে সাহিত্যের বিকাশ এবং এর বিভিন্ন শাখার জনপ্রিয়তা নির্ভর করে সে-দেশের লেখকদের লেখার পরিধি এবং পাঠকের রুচি ও চাহিদার ওপরে। সে হিসেবে বর্তমানে বিশ্বসাহিত্যের সর্বাধিক জনপ্রিয় শাখা "থৃলার" আমাদের দেশের পাঠকদের কাছে এখন শুধুমাত্র "গোয়েন্দা গল্প" কিংবা "বাচ্চাদের বই"-এর খোলস ছেড়ে অনেকটাই বেরিয়ে এসেছে। দেশীয় মৌলিক থৃলার-উপন্যাস এবং বিদেশী অনুবাদ-থৃলারের ক্রমবর্ধমান জনপ্রিয়তা প্রমাণ করে আমাদের দেশের পাঠকেরা ইতোমধ্যেই উচ্চমানের থৃলারের স্বাদ বেশ ভালোভাবে গ্রহণ করতে শুরু করেছে। এই জনপ্রিয়তার ধারা অক্ষুন্ন রাখতে এবং দেশীয় প্রেক্ষাপটে মৌলিক থৃলার-লেখক তৈরির প্রয়াসে গতবছর একুশে বইমেলায় বাতিঘর প্রকাশনী থেকে প্রকাশিত হয় বাংলা সাহিত্যের প্রথম "থৃলার গল্প সংকলন"। বিদেশী লেখকদের অনুবাদ গল্পের পাশাপাশি তাতে সংযোজন করা হয় দেশীয় লেখকদের মৌলিক থৃলার-গল্প। "থৃলার গল্প সংকলন"-এর পাঠকপ্রিয়তার ধারাবাহিকতায় এবার প্রকাশিত হলো "থৃলার গল্প সংকলন ২"। এবারের সংকলনে মূলত দেশীয় লেখকদের প্রাধান্য দেয়া হয়েছে, সেই সাথে সংযোজন করা হয়েছে কিছু ক্লাসিক-থৃলারের অনুবাদ। বিদেশী এবং দেশীয় প্রেক্ষাপটের গল্পগুলো পাঠকদের ভাল লাগলে আমাদের প্রচেষ্টা সফল হবে।
--রবিন জামান খান, লেখক ও অনুবাদক (ইনসাইড ফ্ল্যাপ থেকে)

গল্পের সূচী:
১. আইজেনহাইম দ্য ইল্যুশনিস্ট, মূল: স্টিভেন মিলহসার, অনু: রবিন জামান খান
২. হোমিসাইড, রবিন জামান খান
৩. কুইন অফ হার্টস, রবিন জামান খান
৪. রাইটার্স ব্লক, শরীফুল হাসান
৫. ব্ল্যাকমেইল, শরীফুল হাসান
৬. দ্বিতীয় জীবন, শরীফুল হাসান
৭. ওকামের উল্টো খুর, তানজীম রহমান
৮. দ্য টাইস দ্যাট বাইন্ড আস, মূল: কুইন্ট সি. পার্ক, অনু: তানজীম রহমান
৯. ডিসফিগারড, মূল: মাইকেল আর. ড্যানিয়েল পামার, অনু: তানজীম রহমান
১০. নার্সিসাস, জাহিদ হোসেন
১১. দ্য আগলি, জাহিদ হোসেন
১২. দ্য নিলিং সোলজার, মূল: জেফেরি ডীভার, অনু: জাহিদ হোসেন
১৩. দি টেল অফ দি স্ট্রেঞ্জ কিস, সালেহ তিয়াস
১৪. অনুতে একাকীত্ব, কামরুন নাহার
১৫. প্রমাণ, প্রান্ত ঘোষ দস্তিদার
১৬. পনজি স্কিম, নওশের ইবনে হালিম ডন
১৭. ইনভেশন ফ্রম আউটার স্পেস, মূল: স্টিভেন মিলহসার, অনু: মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন
১৮. টেইল টু টেল হার্ট, মূল: এডগার অ্যালান পো, অনু: মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন
10
দেশী-বিদেশী থৃলার গল্পের সম্ভার। বাতিঘর প্রকাশনীর একটি ভিন্নধর্মী প্রচেষ্টা। থৃলারভক্ত পাঠকের তৃষ্ণা মেটাবে সেইসাথে বাংলা ভাষায় থৃলারচর্চায় নতুন মাত্রা যোগ করবে এই বইটি।